হোতারুবি ন মরি ই (ইনটু দি ফরেস্ট অফ ফায়ারফ্লাইজ লাইট)

লেখকঃ ইয়ুকি মিদরিকাওয়া
পরিচালকঃ তাকাহির অমরি
জনরাঃ রোমাঞ্চ, অতিপ্রাকৃত
IMDb রেটিংঃ ৮
ব্যক্তিগত রেটিংঃ ৯.৫

আপনার ভুত প্রেত দেখার প্রচন্ড শখ। কিন্তু আপনি কোন ভাবেই দেখার সুযোগ পাচ্ছেন না। হঠাৎ দেখলেন গ্রামের বাইরে জঙ্গলে মেলা হচ্ছে। মানুষ ছাড়া কি এতো সুন্দর মেলা সম্ভব ?

ছয় বছর বয়সী হোতারু তাকেগাওয়া তার দাদা বাড়িতে বেড়াতে এসে বনে হারিয়ে যায়। হঠাৎ সে মুখোশধারী একজনকে দেখতে পায় (ছোটবেলায় আমি দেখলে হয়তো ভয় পেতাম)। তার নাম হলো গিন। গিনের বাবা মা ছোটবেলায় তাকে বনে রেখে চলে গিয়েছিলো। মাউন্ট গড বা মাউন্ট স্পিরিট তাকে লালন-পালন করে বড় করে তুলেছে। গিন হোতারুকে বন থেকে বাইরে বের হতে সাহায্য করে। যাওয়ার অাগে হোতারু গিনকে কথা দিয়ে যায় যে সে আবার ফেরত আসবে।

প্রত্যেক গ্রীষ্মের ছুটি ছিল বয়সে হোতারুর কাছে আকুল অাকাঙ্খার মতো। সে অধীর অাগ্রহে বসে থাকতো গ্রীষ্মের ছুটির অপেক্ষায়। প্রত্যেক গ্রীষ্মের ছুটিতে হোতারু গিনের সাথে সময় কাটাতো। এভাবে হোতারু ধীরে ধীরে জুনিয়র স্কুল পার করে হাই স্কুলে উঠে। সাথে সাথে তার বয়সও বাড়তে থাকে। কিন্তু গিনের বৃদ্ধি সাধারণ মানুষ থেকে ভিন্ন। তাই তার বয়স বাড়ে খুবই ধীরে ধীরে। এছাড়াও গিনের একটি গোপন রহস্য রয়েছে। সেটা হলো কোন মানুষ যদি তাকে স্পর্শ করে তাহলে তার জাদুকরী সব ক্ষমতা নষ্ট হয়ে যাবে এবং সে আস্তে আস্তে উধাও হয়ে যাবে ।

এভাবে আস্তে আস্তে গিন ও হোতারুর মধ্যে দূরত্ব কমতে থাকে। সেই সাথে বাড়তে থাকে ভালোবাসা ও আবেগ। কিন্তু সত্যিই কি একজন মানুষ আর স্পিরিটের মধ্যে ভালোবাসা সম্ভব? তাদের মধ্যকার দূরত্ব বাড়বে নাকি বৃদ্ধি পাবে তাদের সখ্যতা? নাকি শেষমেশ একদিন গিন অদৃশ্য হয়ে যাবে?

হোতারুবি ন মরি ই-তে রোমান্টিক ভালোবাসার এক গল্পের কথা উঠে এসেছে, যা মুভিটিতে অত্যন্ত সুনিপুণভাবে তুলে ধরা হয়েছে। এটি অন্য যেকোনো রোমান্টিক মুভিকে ছাড়িয়ে যাবে। দেখা শেষে আপনি হয়তো কেঁদে দিতে পারেন। মুভিটি কেঁদে দেবার মতই (আমি নিজেই কেঁদে দিয়েছিলাম)

মুভিটি থেকে অবশ্যই কিছু শেখার আছে। মানুষ তার নিজের সন্তানকে ত্যাগ করে ফেলে গেলেও বনের পশু পাখি করে না। অনেকে হয়তো শুনে থাকবেন কোন কোন জীব জন্তু মানুষকে বড় করতে সাহায্য করছে, তার জীবন রক্ষা করছে। কিন্তু আমরা সৃষ্টির সেরা জীব হয়েও তাদের বিপরীত কাজ করে চলেছি।

আশা করি সকলেই মুভিটি দেখবেন। মুভিটির ব্যাপ্তিকাল মাত্র ৪৪ মিনিট, তাই আপনার সময় বৃথা যাবে না একদমই । যারা রোমান্টিক মুভি দেখতে ভালোবাসেন, হোতারুবি ন মরিই দেখা তাদের জন্য অপরিহার্য, একথা বলাই যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *